সামনেই আসছে শীত! এবার পা ফাটার সমস্যা থেকে মিলবে চিরতরে রেহাই, জেনে নিন এই দুর্দান্ত গোপন ট্রিকস

নিজস্ব প্রতিবেদন: আর কিছু সময়ের মধ্যেই কিন্তু শুরু হয়ে যাবে শীতকাল। কালীপুজোর কয়েকদিন আগে থেকেই ইতিমধ্যে ঠান্ডার আমেজ পড়তে শুরু করে দিয়েছে। শীতকাল মানে কিন্তু ত্বকের নানান ধরনের সমস্যা। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে পা ফাটা। কমবেশি অনেকেই কিন্তু এই সমস্যার একজন ভুক্তভোগী। বিশেষ করে যারা সারাদিন জল কাদার মধ্যে থেকে কাজ করেন বা সারাদিন বাইরে যাতায়াত করতে হয় তাদের কিন্তু শীতকালে এই পা ফাটা সমস্যা যেন কয়েক গুণ বেড়ে যায়।

ফেটে যাওয়ার ফলে শুধুমাত্র পায়ের স্কিন দেখতে খারাপ লাগে এমনটাই নয়, ফাটা অংশ থেকে রক্ত পড়তে শুরু করে বা তুমুল ব্যথা জ্বালা করে। তাই আমাদের অতি অবশ্যই উচিত এই সমস্যা থেকে নিজেদেরকে মুক্ত করা। পা ফাটা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য অনেকেই কিন্তু বাজার চলতি নানান ধরনের ক্রিম ব্যবহার করে থাকেন। তবে আমরা বলব এই রকম যে কোন ক্রিম ব্যবহার না করে আপনারা কিন্তু চাইলে সহজ কিছু উপকরণের সাহায্যেই পা ফাটা বাড়িতে বসেই কমিয়ে ফেলতে পারেন। চলুন আর সময় নষ্ট না করে আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।

পা ফাটার সমস্যা থেকে মুক্তির উপায়:

এই রেমেডিটি তৈরি করার জন্য আপনাদের প্রথমেই একটি পাত্রের মধ্যে নিয়ে নিতে হবে পেঁয়াজ। পেঁয়াজ দিয়ে শুধুমাত্র পা নয় ঠোঁট ফাটার সমস্যাও কিন্তু দূর করা যেতে পারে। এবার আপনাদের পেঁয়াজ একটু থেঁতো করে নিতে হবে। এই কাজে আপনারা গ্ৰেটারের ছোট ছিদ্রের অংশগুলি ব্যবহার করতে পারেন। এবার এই থেঁতো করে নেওয়া পেঁয়াজের মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে গুঁড়ো হলুদ এবং সামান্য পরিমাণে ভেসলিন। যদি আপনারা পারেন সে ক্ষেত্রে হলুদের জায়গায় অবশ্যই কাঁচা হলুদ দেবেন।

বাড়িতে ভেসলিন না থাকলে কিন্তু বিকল্প হিসেবে আপনারা গ্লিসারিনও ব্যবহার করতে পারেন। এবার যে কাজটি আপনাদেরকে করতে হবে সেটা হলো এই তিনটি উপকরণ ভালোভাবে মিশিয়ে নেওয়ার পরে যখন আপনাদের বিশেষ কোনো কাজ থাকবে না অর্থাৎ বাইরে ঘোরাফেরা করতে হবে না সেই সময় পায়ের গোড়ালির ফাটা অংশ এবং অন্যান্য অংশের ভালো করে এটাকে লাগিয়ে নিন। অবশ্যই মাথায় রাখবেন যখন এই মিশ্রণটি আপনারা পায়ে লাগাবেন তখন যেন আপনাদের পা একেবারে শুকনো অবস্থায় থাকে।

কারণ ভেজা অবস্থায় এই মিশ্রণটি পায়ে লাগালে কিন্তু কোন রকম কাজই হবে না। মিশ্রণটি লাগানোর পর আপনাদের মোটামুটি তিন থেকে চার ঘন্টা সময় পর্যন্ত এটাকে ওভাবেই ফেলে রাখতে হবে। ৩ থেকে ৪ ঘন্টা পর পায়ের মধ্যে লাগানো এই মিশ্রণটি শুকিয়ে গেলে আপনারা এটাকে হালকা কোন টিস্যুর সাহায্যে তুলে ফেলবেন।। এবার ওই অবস্থাতেই কিছুক্ষণ আপনারা পা টা কে রেখে দিন। কোনরকম জল কিন্তু লাগাবেন না।

আধ ঘন্টা সময়ের পর একটু কুসুম গরম জলে শ্যাম্পু মিশিয়ে আপনারা একবার পা চুবিয়ে ভালো করে ধুয়ে নেবেন। এভাবে যদি আপনারা সপ্তাহে প্রতিদিন করতে পারেন বেশ কিছুটা সময় তাহলে কিন্তু আর পা ফাটা নিয়ে আপনাদের কোন রকমের চিন্তা করতে হবে না। পেয়াজ হলুদ এবং ভ্যাসলিনের তৈরি এই মিশ্রণের মধ্যে এমন কার্যকরী গুন আছে যা খুব সহজেই আপনাকে চিরতরে পা ফাটার সমস্যা থেকে মুক্তি এনে দেবে।

Back to top button