নিউজ

১৫ বছরের ছাত্রের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে বি’পাকে ৪৩ বছরের শিক্ষিকা, ধরা পড়লেন অ’শ্লী’ন ভাবেও!

নিজস্ব প্রতিবেদন:- কথাতে আছে মা বাবার পরে শিক্ষক হল ভগবান । অর্থাৎ শিক্ষাগুরুকে আমরা ভগবানের চোখে দেখে থাকি এবং মানি । কারণ জীবনে সফলতা বা এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রথম পত্র প্রদর্শক শিক্ষাগুরুরা হয়ে থাকেন । তাই তাদের প্রতি ভালোবাসা সম্মান শ্রদ্ধা অবশ্যই থাকা দরকার নইলে জীবনে কোনদিন কোন বড় জায়গায় পৌঁছাতে পারা যায়না। কিন্তু সম্প্রতি এই ঘটনা বলছে যে শুধুমাত্র শিক্ষকের প্রতি শিক্ষক-শিক্ষিকার প্রতি শ্রদ্ধা ভালোবাসা সম্মান থাকলেই চলবে না এর পাশাপাশি প্রেম বা শারীরিক ভালোবাসা থাকাটাও দরকার ।

সাধারণত স্কুল কলেজের শিক্ষিকা রা ছাত্র তুলনায় কিছুটা বড় হয়ে থাকে। এটা খুব স্বাভাবিক যে বিপরীত লি-ঙ্গে-র প্রতি একটা টান প্রত্যেক মানুষের থেকে থাকে। অর্থাৎ ছেলেরা মেয়েদের প্রতি এবং মেয়েরা ছেলেদের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে থাকে । কিন্তু তার সাথে সাথে এটাও মাথায় রাখা দরকার যে যার প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে সে আমার থেকে বড় না ছোট? সম্পর্কে তিনি আমার কে হন? যদি তিনি আমার সম্পর্কের শিক্ষিকা হয়ে থাকে তাহলে বোধহয় আর সেই অনুভুতি কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন থাকে না ।

সম্প্রতি এ রকম একটি ঘটনা ঘটেছে যেখানে দেখা যায় ১৫ বছরের এক ছাত্রের সাথে ৪৩ বছরের এক শিক্ষিকার প্রেমে লিপ্ত হয়েছেন । লিডিয়া বেটি মিলিগ্যান নামের ওই নারী সহকারী শিক্ষিকা লিডিয়েট এর মেরিসাইডের বাসিন্দা । তিনি ১৫ বছর বয়সী ওই ছাত্রের সঙ্গে সাক্ষাতের পর তাকে অন্যদের থেকে আলাদা করে দেখা শুরু করেন। এবং শেষে হোটেল এ বুকিং দেওয়ার কথা ভাবেন । এ কথা তিনি নিজের মুখে স্বীকার করেছেন । তবে তার দাবি তিনি ওই ছাত্রকে বিভিন্ন বিষয়ে উপকার করতে চেয়ে ছিলেন ।যৌনসঙ্গমের কোন ইচ্ছে বা দাবি ছিল না ।দুই সন্তানের মা মিলিগ্যানের বিরুদ্ধে কারাদণ্ডের ঘোষণা দিয়েছে লিভারপুল ক্রাউন কোর্ট । বিচারক গ্যারি উডহল বলেন, ওই শিশুর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button