“শুভশ্রীর বাচ্চাটা খুব স্মার্ট। আমি নিজেই মাঝে মাঝে ছবি চেয়ে পাঠাই, দেখব বলে।” ইউভানের প্রশংসায় পঞ্চমুখ স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- বর্তমানে টলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী হলেন শুভশ্রী গাঙ্গুলী। অন্যদিকে টলিউডের পরিচালনার ক্ষেত্রে জনপ্রিয় পরিচালক হলেন রাজ চক্রবর্তী। বর্তমানে দুজন যে স্বামী স্ত্রী তা আমাদের সকলেরই জানা। আবার তাঁদের একটু খুদে সদস্যও আছে। নাম ইউভান। বাবা মায়ের জনপ্রিয়তা তাঁকে এখনই সেলিব্রিটি পর্যায়ে নিয়ে গেছে। এছাড়াও ইউভান নিজেও সোশ্যাল মিডিয়াতে সেলিব্রেটি কিডদের মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় এক খুদে। সাধারণ দর্শকেরাও অফুরন্ত ভালোবাসা দিয়েছেন এই তারকা পুত্রকে।

এই ভালোবাসা দেওয়া থেকে বাদ যাননি রাজ্যের কর্ত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। এমনকি মুখ্যমন্ত্রী নাকি স্বয়ং এই তারকা পুত্রের ছবিও চেয়ে পাঠান। হয়তো একেই বলে ভাগ্য। তারকা পুত্রদের মধ্যে মুখ্যমন্ত্রীর সবচেয়ে পছন্দের খুদে হল ইউভান। মানে বুঝতেই পারছেন মুখ্যমন্ত্রী এই ক্ষুদে কে ঠিক কতটা পছন্দ করেন যে তাঁর ছবি যে পাঠান।

সম্প্রতি এবার বলতে শোনা গেলো এই তারকা পুত্রকে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে। জাগো বাংলা সংবাদপত্রের শারদীয়ার উদ্বোধনীতে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে এসেই ইউভান সম্পর্কে কিছু বলেন মুখ্যমন্ত্রী। কর্ত্রীকে বলতে শোনা যায়, “শুভশ্রীর বাচ্চাটা খুব স্মার্ট। আমি নিজেই মাঝে মাঝে ছবি চেয়ে পাঠাই, দেখব বলে।”

এছাড়াও এর আগে মুখ্যমন্ত্রীকে কাজ নিয়ে অনেক কিছু বলতে শোনা গিয়েছে। সাধারণ মানুষটি কি কি ধরনের কাজ করতে পারেন সেসব নিয়ে অনেক রকম পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি। আর সেইসব পরামর্শ শিক্ষিত উচ্চবিত্ত বুদ্ধিজীবী মানুষদের ঠিক পছন্দ হয়নি। আর তাইতো সেটা নিয়েও চর্চার শিকার হতে হয়েছিল মুখ্যমন্ত্রীকে। এই দিন এই বিষয়েতেও মুখ খুললেন মুখ্যমন্ত্রী। বললেন, “আজকাল দেখছি যদি একটা নিজস্ব মতামতও দিলেও সেখানেও বিকৃত কথাবার্তা বলা হচ্ছে। নিজের পায়ে দাঁড়ানোর কথা বললেও সমস্যা। আজ তো কাঁচাবাদামের ভুবন গান গাইল। মানুষ সমর্থন না করলে কি ও এখানে পৌঁছত! চায়ে পে চর্চা, নানারকম কথা হতেই থাকবে।”

এদিন বিরোধী দলের উদ্দেশ্যেও মুখ্যমন্ত্রী মুখ খুলেছে। বলেছেন, “বাংলার নামে বদনাম করলে, অসম্মান করলে রাগ হয়। একসময় তো দিল্লিতে যেতে লজ্জা লাগত। খালি বাংলার নামে অপবাদ। বাইরে থেকে টাকা দিয়ে কিছু লোক এসেছে। যারা গালাগাল দিচ্ছেন। তবে কারও কিছু এসে যায় না। আমরা প্রতিহিংসাপরায়ণ নই। তাই ৩৪ বছরের জন্য CPIM-এর কাউকে গ্রেফতার করিনি। আপনারা তরজা করে যান, বাংলা আরও উন্নতি করবে। উন্নয়নই আমাদের কাজ।”

প্রসঙ্গত আগেও মুখ্যমন্ত্রী বেকারদের উদ্দেশ্যে প্রচুর উপার্জনের পরামর্শ দিয়েছিলেন। এবারেও মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “চা-বিস্কুট, ঘুগনি, তেলেভাজার ব্যবসা করুন, পুজো আসছে, দিয়ে কুলোতে পারবেন না। খেটে খেতে হবে, শরীরের নাম মহাশয়। যা সওয়াবেন তাই সইবে।” যদিও আমরা সকলেই জানি বর্তমানে রাজ্যের শাসক দল অর্থাৎ তৃণমূল বেশ ভাল রকমই চর্চায় আছে।

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর নিজেরই এসএসসি স্ক্যাম থেকে শুরু করে আরো বিভিন্ন নোংরা সম্পর্কের জন্য জর্জরিত হয়ে আছেন। পার্থ চট্টোপাধ্যায় আর অর্পিতা আবার অন্যদিকে অনুব্রত ও তাঁর কন্যার কেচ্ছা বেশ ভাল রকমই চর্চায় রয়েছে রাজ্যে।

Back to top button