নিউজপলিটিক্স

‘বাংলার মানুষ বিজেপিকে চায়, ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলকে হটিয়ে বিজেপি বাংলায় সরকার গড়বে: লকেট চট্টোপাধ্যায়

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আর মাত্র হাতে গোনা কয়েকটি মাস তারপরে বাংলায় ভোট । সামনে একুশের ভোটকে কেন্দ্র করে কে আসবে ক্ষমতায় তা নিয়ে জ-ল্প-না তুঙ্গে । কে হবে বাংলার শাসক দল? সে নিয়ে আছে ঢের সংশয়। কিন্তু অব্যাহত থেকেছে ল-ড়া-ই । তাই পাড়ায় পাড়ায় মোড়ে মোড়ে দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মিটিং মিছিল কর্মসূচি ইত্যাদি। মানুষের দোড়গোড়ায় এসে পৌঁছেছে তাদের অসুবিধা জানার জন্য তার সাথে সাথে বর্তমান সরকারের ভুল ত্রুটির দুর্নীতি তুলে ধরার জন্য । বাকিটা হয়তো জনগণের সিদ্ধান্ত সিদ্ধান্ত ।আমরা এর আগে দেখেছি এ ভোটকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন বিভিন্ন নেতা-মন্ত্রীরা একে অপরের বি-রু-দ্ধে ছুড়েছেন ক-টা-ক্ষ। এ ঘটনা নতুন নয় তবে ফের আরও একবার তৃণমূলকে দুষলেন বিজেপি নেত্রী লকেট চ্যাটার্জি । তার সাথে ছিলো হুম-কির সুর ও ।

শিলিগুড়ি সাংবিধানিক বৈঠক বিস্ফো-রক মন্তব্য করেন বাংলার অভিনেত্রী তথা বিজেপি নেত্রী লকেট চ্যাটার্জি । তিনি বলেন ” তৃণমূলকে উড়িয়ে বাংলায় ক্ষমতায় আসবে বিজেপি । বড় ভূমি-কম্প হওয়ার আগে যেমন একটি থমথমে আবহাওয়া থাকে গত নবান্ন অভিযান সেই ভূমি-কম্পের পূর্বাভাস ছিল । যে ভূমিক-ম্পে উড়ে যাবে তৃণমূল সরকার । ২০২১ বাংলায় আসবে বিজেপি। মানুষ চাই বিজেপি আসুক । এর পাশাপাশি তিনি এও বলেন ” মুখ্যমন্ত্রী হাথ্রাস এর ঘটনাকে নিয়ে পথে নেমেছেন কিন্তু নিজের রাজ্যের দিকে খেয়াল নেই ওনার । রায়গঞ্জে পার্কস্ট্রিটে কামদুনিতে ঘটেছে গ-ণধ-র্ষ-ণ কাণ্ড কিন্তু সে ব্যাপারে তিনি কোনো মিছিল বের করেন নি”।

এর পাশাপাশি লকেট চ্যাটার্জি এই বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়ে রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসু জানান যে “বর্তমানে রাজ্যে তৃণমূলের অ-স্তি-ত্ব বিপন্ন। তৃণমূল শুধু রাজনীতি করছে। নবান্ন অভিযান নিয়ে পুলিশের ভূমিকা অত্যন্ত লজ্জাজনক।” এএপর পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবকে আক্র-মণ করে সায়ন্তন বলেন, “গৌতম দেব নিজের বিধানসভা ক্ষেত্রে ৮০ হাজার ভোটে হরেছেন, তবুও তিনি রাজনীতি করছেন। তাঁর কথার কোনও অর্থ নেই।” খুব স্বাভাবিক ভাবে বোঝা যাচ্ছে যত ভোট এগিয়ে আসছে ততই বাড়ছে প্রতিদ্বন্দিতা । তবে শুধুমাত্র জনগণ আর সময় বলবে কে হতে চলেছে আগামী দিনে বাংলার শাসক দল ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button