‘এখনকার জেনারেশনের ধৈর্যের খুব অভাব রয়েছে’- সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে কী বললেন দেবশ্রী রায়?

নিজস্ব প্রতিবেদন: ৯০ এর দশকের টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রীদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন দেবশ্রী রায়। দাপটের সঙ্গে সেই সময়ে ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করেছেন তিনি। বড়পর্দায় খুব একটা কাজ না করলেও সম্প্রতি ছোটপর্দায় দেখা যাচ্ছিল তাকে। সর্বজয়া নামের একটি ধারাবাহিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন দেবশ্রী। যদিও বেশ কয়েকদিন হল এই ধারাবাহিকটি শেষ হয়ে গিয়েছে।

সম্প্রতি এই সবকিছুর মাঝেই এক জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন দেবশ্রী রায়। সেখানেই অনেক বিষয় নিয়ে নানান ধরনের তথ্য জানিয়েছেন এই নায়িকা। পাশাপাশি এখনকার জেনারেশন থেকে শুরু করে চলচ্চিত্র জগৎ অনেক কিছু নিয়েই মুখ খুলেছেন দেবশ্রী। চলুন এবার প্রতিবেদনের পরবর্তী অংশে যাওয়া যাক।

প্রতিবেদনের শুরুতেই দেবশ্রী রায়কে যখন প্রশ্ন করা হয় যে,তার ব্যক্তিগত জীবনে কি কখনো এমন ওঠা পড়া এসেছে যে আপনাকে ভেঙে পড়তে হয়েছে বা মরার কথা ভাবতে হয়েছে? উত্তরে দেবশ্রী বলেন,“প্রত্যেক মানুষের জীবনেই নানান ধরনের ওঠানামা রয়েছে তার জন্য মরে যেতে হবে এরকম কোন মানে নেই। আমি একদিনে এই জায়গাটা পাইনি ।অনেক সংগ্রাম করে পেয়েছি। তাই প্রত্যেক মানুষের জীবনেও কিন্তু এরকম ওঠানামা থাকে।

আত্মহত্যা মহাপাপ এটা ঠাকুরও বলেন। তবে এইসব দেখে মনে হয় যে এখনকার জেনারেশনের ধৈর্যের খুব অভাব রয়েছে। এই যে একটা অসহিষ্ণুতা, খুব তাড়াতাড়ি একটা কিছু পেয়ে যাব এটা কিন্তু কখনোই হয় না।। শর্টকাট ভাবে কোন জিনিস পাওয়া যায় না। প্রত্যেক মানুষকে একটা জিনিস পেতে গেলে অনেক সেক্রিফাইস করতে হবে। অনেক কিছু শিখতে আর জানতে হবে। যেকোনো ওঠাপড়াকেই খুব সাহসিকতার সঙ্গে ফেস করা উচিত বলেই আমার মনে হয়”।

এরপর ডিপ্রেশন কি এখন একটা ট্রেন্ড হিসেবে চলছে? এই প্রশ্নের উত্তরে নায়িকা বলেন, “ডিপ্রেশন ব্যাপারটা কি ঠিক সেটা আমি জানি না। তাই আমি বলতে পারব না। এটা মানেটা কি বা এটা হলে মানুষের মনে কি হয়? আমি একেবারেই বুঝিনা। আমি খুব গান বা মিউজিক ভালোবাসি। মন খারাপ হলে আমি গান শুনি। খুব মন খারাপ হলে খুব হাসির কিছু দেখি”। এরপর একটি অসাধারণ কণ্ঠে দেবশ্রী রায় কে গান গাইতে ও শোনা যায়। প্রসঙ্গত এদিন একটি স্যালোনের উদ্বোধনে এসেছিলেন দেবশ্রী। সেখানেই সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে এই সাক্ষাৎকার দেন অভিনেত্রী।

প্রসঙ্গত ব্যক্তিগত জীবনে প্রসেনজিৎ আর দেবশ্রী রায়ের বিচ্ছেদের ব্যাপারে সকলেই জানেন। সম্প্রতি কিছুদিন আগেই পরবর্তী ছবি কাছের মানুষের প্রচারে এসে প্রসেনজিৎ জানিয়েছিলেন যে দেবশ্রী রায়ের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর দেড় বছর তিনি বাড়ি থেকে বেরোতে পারেননি।। সমস্ত কাজ ছেড়ে ঘরবন্দি হয়ে বসে ছিলেন। এরপর পরিচালক তথা বন্ধু অভিজিৎ গুহর সহায়তায় আবারও ইন্ডাস্ট্রিতে ফেরত আসেন প্রসেনজিৎ। দীর্ঘ সময়ের বন্ধুত্বের পর 1995 সালে দেবশ্রী রায় কে বিয়ে করেছিলেন প্রসেনজিৎ। তবে অজানা কারণে তাদের মধ্যে কয়েক মাসের মধ্যেই বিবাহবিচ্ছেদ হয়ে যায়।

Back to top button