‘চীনা মোবাইল কোম্পানিগুলিকে দেশ থেকে তাড়াতে প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সারা দিয়ে এগিয়ে আসলো মাইক্রোম্যাক্স’

‘চীনা মোবাইল কোম্পানিগুলিকে দেশ থেকে তাড়াতে প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সারা দিয়ে এগিয়ে আসলো মাইক্রোম্যাক্স’

নিজস্ব প্রতিবেদন:- লাদাখে ভারত-চীন যু-দ্ধে-র কথা আমাদের সকলেরই জানা। সীমান্তে রীতিমতো উত্তে-জনা বাড়ি ছিল চীন কিন্তু ভারত ও ছিল না পিছিয়ে । মুখ্য জবাব দেওয়ার জন্য তৈরি ভারত। ইতিমধ্যে ভারত সরকার চীনের বেশ কয়েকটি অ্যাপ এ সিদ্ধ করেছে । ভারতীয় গতি-বিধির ওপর নজর রাখার জন্য ভারত সরকার ২৩৮ চাইনিজ অ্যাপ ইতিমধ্যে ভারতবর্ষের নি-ষি-দ্ধ করেছে । তবে এর পরের স্ট্রো-ক আলাদা একদম। যাকে বলে মাস্টার স্ট্রোক ।

করোনার আবহে লকডাউন এর সময় প্রধানমন্ত্রী এক বক্তৃতায় আত্মনির্ভর ভারতের কথা বলেছিলেন। সেখানে বলেছিলেন ভারতকে আগামী দিন এ আত্মনির্ভর করতে হবে। কিন্তু আত্মনির্ভর হওয়ার জন্য হওয়ার জন্য প্রথমে যেটা দরকার সেটি হল এদেশীয় সংস্থা। অর্থাৎ এদেশীয় সংস্থাগুলি যতক্ষণ না ভারতীয় বাজারে একচেটিয়া অধিকার করছে ততক্ষণ পর্যন্ত আত্ম-নির্ভর হওয়া সম্ভব নয়। এবার সেই মাত্রাকে আরো একধাপ এগিয়ে নিয়ে গেল ভারত সরকার।

বেশ কিছু বছর আগে মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থা মাইক্রোম্যাক্স মোবাইল বাজারে এক বিপ্লব এনেছিল। কম দামে উচ্চমানের মাইক্রোম্যাক্স ফোন দিয়েছিল সেই সময় স্যামসাং কে টেক্কা । তবে চাইনিজ মোবাইলে দাপটে বাজারে টিকতে পারেনি মাইক্রোম্যাক্স । অচিরে হারিয়ে যায় সেটি। কিন্তু ফের আরো একবার দ্বিতীয় দফায় বাজার কাঁ-পা-তে আসছে মাইক্রোম্যাক্স। মূলত এদেশীয় সংস্থাকে বাজারে আনার জন্য এরূপ একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

বাজারে নতুন করে আগমনের কথা টুইট করে জানিয়েছে মাইক্রোম্যাক্স। একটি আবেগঘন ভিডিয়োবার্তা সংস্থার সহ-প্রতিষ্ঠাতা রাহুল শর্মা বলছেন, ”মাত্র ৩ লক্ষ টাকায় বন্ধুদের সঙ্গে ব্যবসা শুরু করেছিলাম। দেখতে দেখতে সাফল্যের শিখরে পৌঁছয় মাইক্রোম্যাক্স। কিন্তু চিনা সংস্থাগুলির সঙ্গে প্রতিযোগিতায় পারলাম না।” এরপরই ‘ইন’ ব্র্যান্ডের আত্মপ্রকাশ। কামব্যাক পরিকল্পনায় ৫০০ কোটি টাকা লগ্নি করতে চলেছে মাইক্রোম্যাক্স।

গত ৮-৯ মাস ধরে নতুন প্রকল্প কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন রাহুল শর্মা। তবে দ্বিতীয় ইনিংসে আর সস্তার ফোন থাকছে না। রাহুল শর্মার কথায়,”এবার আর ৩০০০-৫০০০ টাকার ফোন থাকছে না। মোটামুটি ৭০০০-১০০০ টাকা ও ২০০০০ থেকে ২৫০০০ টাকার মধ্যেই থাকবে ফোনগুলি।”  এবার শুধু দেখার অপেক্ষায় যে বাজারে মাইক্রোম্যাক্স এসে ঠিক কতটা আত্মনির্ভর হয়ে ওঠে ভারতবর্ষে ।

,