একেবারে অনুষ্ঠান বাড়ির স্টাইলে বাড়িতেই এই সহজ দুর্দান্ত উপায়ে বানান দারুণ টেস্টি কাবলি ছোলার রেসিপি

নিজস্ব প্রতিবেদন: উৎসবের দিনে বাড়িতে লুচি বা রুটির সঙ্গে কাবলি ছোলার রেসিপি কিন্তু অনেকেই পছন্দ করে থাকেন। তবে অনুষ্ঠান বাড়ির মতন কাবলি ছোলা বানাতে কিন্তু অনেকেই পারেন না। তাই এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করে নিতে চলেছি একেবারেই অনুষ্ঠান বাড়ির মতন হুবহু পদ্ধতিতে কাবলি ছোলা তৈরি করার রেসিপি। এই রান্নাটি যদি একবার বাড়িতে করেন তাহলে কিন্তু শিশু থেকে বয়স্ক সকলেই বারবার এটা খেতে চাইবে। চলুন তাহলে আর সময় নষ্ট না করে আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।

কাবলি ছোলা তৈরি করার সহজ এবং স্টেপ বাই স্টেপ রেসিপি:

১) প্রথমেই আপনাদের দুই বাটির মতন কাবলি ছোলা নিয়ে নিতে হবে। এটাকে সারারাত সামান্য বেকিং পাউডার ব্যবহার করে জলে ভিজিয়ে রাখার চেষ্টা করবেন। বেকিং পাউডার ব্যবহার করলে কিন্তু খুব দ্রুত ছোলা সেদ্ধ হয়ে যাবে। এবার গ্যাসে একটি পাত্রের জল নিয়ে সেখানে দুই চামচ চায়ের লিকার দিয়ে দিন। এটি তৈরি করলে কিন্তু কাবলি ছোলার রং দারুন হবে। অন্যদিকে একটি প্রেসার কুকারে জলের মধ্যে সামান্য লবন আর হলুদ দিয়ে আপনাদেরকে ছোলা গুলিকে সেদ্ধ করে নিতে হবে।

কয়েকটি গোটা মসলা ও ছোলার মধ্যে এই সময় দিয়ে দেবেন তেজপাতা,দুটি লবঙ্গ, চারটে এলাচ এবং দারচিনি। চায়ের লিকার তৈরি হয়ে গেলে সেটাও প্রেসার কুকার এর ছোলার মধ্যে আপনারা একটু ছেঁকে ঢেলে দিন। খুব ভালো করে এবার সেদ্ধ হওয়া পর্যন্ত আপনারা অপেক্ষা করুন। এবার গ্যাসে একটি কড়াই বসিয়ে আপনারা পরিমাণ মতন সরষের তেল দিয়ে দিন। এরমধ্যে জিরে আর হিং ফোড়ন দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে নিন।

২) পরবর্তী ধাপে চারটে পেঁয়াজ কুচি করে এই তেলের মধ্যে দিয়ে বেশ কিছু সময় আপনাদের আরো নাড়াচাড়া করতে হবে। পেঁয়াজ যাতে তাড়াতাড়ি ভাজা হয় তাই এর মধ্যে একটু লবণ দিয়ে দিন। পেঁয়াজ কিছুটা ভাজা হয়ে গেলে এর মধ্যে হলুদ আরেকটু জল দিয়ে দিন। এরপর আদা রসুন বাটা যোগ করুন। মিনিট পাঁচেক ধরে আপনাদের এই মসলা কষিয়ে নিতে হবে।

মসলা কষে গেলে দিয়ে দিন ধনে গুঁড়ো, জিরে এবং কিচেন কিং মসলার মিশ্রণ, কাশ্মীরি লাল লঙ্কার গুঁড়ো। তারপর আবারো কিছুক্ষণ মসলা কষিয়ে নিন। মসলা থেকে হালকা গন্ধ বেরোতে শুরু করলে এর মধ্যে দিয়ে দিন একটা টমেটোর পেস্ট। আরো কিছুক্ষন কষিয়ে নেওয়ার পরে এতে চানা মশলা যোগ করুন। যদি ছোলার ফ্লেভার আরো ভালো করতে চান সেক্ষেত্রে আপনারা রান্নার এই পর্যায়ে সামান্য কসুরি মেথিও যোগ করে দিতে পারেন।।

৩) মসলা কষানো হয়ে গেলে প্রেসার কুকার নামিয়ে দেখে নিন ছোলা সেদ্ধ হয়ে গিয়েছে কিনা! মসলা থেকে তেল বেরিয়ে আসলে এর মধ্যে সেদ্ধ করা ছোলা আপনাদের দিয়ে দিতে হবে। চেষ্টা করবেন সেদ্ধ করা ছোলা থেকে কিছুটা ছোলা আলাদা করে রাখতে। এই ছোলাটাকে একটু হালকা থেঁতো করে নিয়ে একটু জল দিয়ে পাতলা করে নিতে হবে। তারপর এই মিশ্রণটাকেও করাইতে ঢেলে দিন। এই পদ্ধতি অবলম্বন করলে কিন্তু কাবলি ছোলার স্বাদ দারুণ হবে।

সামান্য জল দিয়ে এবার সমস্ত রান্নাটা কে কিছুক্ষণ বেশ ভালো করে নাড়াচাড়া করে নিন। তারপর সামান্য চিনি যোগ করুন এতে স্বাদের ব্যালেন্স বজায় থাকবে। অন্যদিকে কাবলি ছোলা কে আরেকটু চটপটা তৈরি করার জন্য আপনাদের একটি তড়কা দিয়ে দিতে হবে।তড়কা বানানোর জন্য প্যানের মধ্যে সামান্য বাটার দিয়ে তাতে ২টি শুকনো লঙ্কা, তিনটি কাঁচা লঙ্কা এবং আদা কুচি দিয়ে দিন। ভালো করে ভেজে নেবার পর এই মিশ্রণটা কেও আপনাদের রান্না হওয়া কাবলি ছোলার মধ্যে দিতে হবে। ব্যাস সামান্য নারকেল কোরা ছড়িয়ে আপনারা এটাকে গরম গরম পরিবেশন করতে পারেন।।

Back to top button