নিরামিষের দিনে খুব সহজ এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে বানিয়ে ফেলুন দারুণ টেস্টি ফুলকপির রোস্ট, খেলে লেগে থাকবে মুখে!

নিজস্ব প্রতিবেদন:- সামনেই শুরু হয়ে যাচ্ছে শীতকাল। শীতকালের সবজি মানে কিন্তু বলা যায় ফুলকপির কথা। কমবেশি অনেকেই ফুলকপির তৈরি বিভিন্ন পদ খেতে অত্যন্ত পছন্দ করে থাকেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই হয়তো ফুলকপি দিয়ে ভাজা অথবা ঝোল তৈরি করা হয়ে থাকে। তবে আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের সঙ্গে ফুলকপি দিয়ে তৈরি একটি সম্পূর্ণ নিরামিষ আর ইউনিক রেসিপি আলোচনা করে নিতে চলেছি। আপনারা যারা আগে এই রেসিপিটি খেয়েছেন তারা সকলেই জানেন এটা স্বাদে কতটা সুন্দর। চলুন তাহলে দেরি না করে আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক। আমাদের আজকের রেসিপি হল ফুলকপির রোস্ট।

  • ফুলকপির রোস্ট তৈরির পদ্ধতি:

১) প্রথমেই আপনাদের এই রান্নাটি তৈরি করার জন্য একটি মাঝারি সাইজের ফুলকপি নিয়ে টুকরো টুকরো করে কেটে নিতে হবে। এগুলি ধুয়ে নেওয়ার পরে ফুলকপির যে ডাটা অংশটি থাকবে সেটাতে একটু করে কাট লাগিয়ে নেবেন যাতে সেটাও ভালোভাবে রান্না হয়ে যায়। এরপর গ্যাসে একটি প্যান বসিয়ে সেখানে পর্যাপ্ত পরিমাণে জল দিয়ে ফ্লেম অন করে দিতে হবে। এই জলের মধ্যে হাফ চা চামচ লবণ দিয়ে তাতে ফুলকপি গুলিকে দিয়ে দিন। তারপর গ্যাস অফ করে দিয়ে এই লবণ জলের মধ্যেই মোটামুটি চার থেকে পাঁচ মিনিট সময় আপনাদেরকে ফুলকপি ভিজিয়ে রাখতে হবে।

এরকমভাবে ভিজিয়ে রাখলে ফুলকপির মধ্যে কোন পোকা থাকলে সেটা বেরিয়ে আসবে। এই সময়ের মধ্যে আপনাদের মসলা তৈরি করে নিতে হবে। তার জন্য আপনারা একটি বাটিতে হাফ কাপ পরিমাণ টক দই নিয়ে নিন। দইটাকে খুব ভালোভাবে মিশিয়ে নেওয়ার পরে এর মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে এক চামচ কাশ্মীরি লাল লঙ্কার গুঁড়ো, কোয়ার্টার চামচ হলুদ গুঁড়ো, এক চামচ ধনে গুঁড়ো, হাফ চামচ জিরা গুঁড়ো, স্বাদমতো লবণ এবং চিনি। তারপর দইয়ের সঙ্গেই মসলাগুলোকে এমন ভাবে মিশিয়ে নিতে হবে, যাতে একটা ক্রিমের মতন টেক্সচার তৈরি হয়ে যায়। তারপর এতে মিশিয়ে নিতে হবে কাজুবাদাম আর চারমগজ বাটা।

২) ফুলকপির রোস্ট এর মূল মসলা তৈরি করে নেওয়ার পরে একটি হাতার সাহায্যে আপনাদেরকে জল থেকে ফুলকপি গুলি ধীরে ধীরে তুলে নিতে হবে। তারপর একটি কড়াই গরম করে সেখানে দেড় থেকে ২ টেবিল চামচ পরিমাণ সাদা তেল দিয়ে তাতে ফুলকপি গুলি দিয়ে দিন। তেল গরম হয়ে গেলে মিডিয়াম ফ্লেমে ফুলকপি গুলিকে আপনাদের বেশ কিছুক্ষণ সময় কষিয়ে নিতে হবে। ফুলকপির মধ্যে খুব সুন্দর একটা লালচে রং তৈরি হয়ে গেলে যে মসলার মিশ্রণটি বানানো হলো তাতে এগুলিকে তুলে দিয়ে দিন।

এরপর দই আর সমস্ত মসলার মিশ্রণের সাথে আপনাদের ভালো করে ফুলকপি মিশিয়ে নিতে হবে। মোটামুটি মিনিট পাঁচেক সময় এটাকে ম্যারিনেট হওয়ার জন্য রেখে দিন। পাঁচ মিনিট পর ওই কড়াইতেই আপনাদের আরো একটু সাদা তেল আর এক চামচ ঘি নিয়ে নিতে হবে। ঘি আর তেল গরম হতে শুরু করলে এর মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে দুটি দারচিনি স্টিক, কয়েকটি ছোট এলাচ, দুটি তেজপাতা, চার-পাঁচটা লবঙ্গ, চার থেকে পাঁচটি গোটা গোলমরিচ, সামান্য পরিমাণে সাদা জিরে। এবার কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করার পর যখন ফোরন থেকে মিষ্টি গন্ধ বেরোবে তখন এতে সামান্য পরিমাণে আদা—কাঁচা লঙ্কা বাটা এতে যোগ করে দিন। এবার সম্পূর্ণ উপকরণ গুলিকে লো ফ্লেমে রেখে মিনিটখানেক সময় কষিয়ে নিন।

৩) এবার আপনাদের এই মসলার মধ্যে দিয়ে দিতে হবে ম্যারিনেট করে রাখা ফুলকপিগুলি। রান্নার এই পর্যায়ে গ্যাসের ফ্ল্যেম আপনাদের বাড়িয়ে দিতে হবে। কিছুক্ষণ ফুলকপি গুলিকে কষিয়ে নেওয়ার পর খেয়াল রাখবেন ফুলকপির ডাটা গুলো যেন গ্রেভির মধ্যে ডুবে থাকে। এতে সেগুলিও কিন্তু ভালোভাবে সেদ্ধ হয়ে যাবে। এরপর যে পাত্রে আপনারা ফুলকপি গুলিকে মেরিনেট করে রেখেছিলেন সেই পাত্রটি কে ধুয়ে একটু জল রান্নাতে দিয়ে দিন।

এই মসলা ধোয়া জল ব্যবহার করলে কিন্তু রান্নার স্বাদ দারুণ হয়। বেশ কিছুক্ষণ ঢাকনা দিয়ে কষিয়ে নেওয়ার পরে ঢাকনা খুলে এতে কয়েকটা চেরা কাঁচা লঙ্কা এবং গরম মসলার গুঁড়ো যোগ করে দিতে হবে। আরো একবার নাড়াচাড়া করার পরে বেশ কিছুক্ষণ সময় তথা যতক্ষণ না ফুলকপির গ্রেভি বেশ ঘন আর মাখামাখা হয়ে যাচ্ছে ততক্ষণ এটাকে ঢাকনা দিয়ে রান্না করে নিতে হবে।

ব্যাস তারপরেই তৈরি হয়ে যাবে ফুলকপির রোস্ট। গরম ভাত থেকে শুরু করে রুটি অথবা পরোটার সাথে আপনারা খুব সহজেই কিন্তু এই ফুলকপির রেসিপি পরিবেশন করতে পারবেন।

Back to top button