২২ বছরের মধ্যে মেয়েদের বিয়ে না হলে যে গোপন ৭টি বড় সম’স্যার সম্মুখীন হতে হয় যুবতী মেয়েদের!

২২ বছরের মধ্যে মেয়েদের বিয়ে না হলে যে গোপন ৭টি বড় সম’স্যার সম্মুখীন হতে হয় যুবতী মেয়েদের!

নিজস্ব সংবাদদাতা: আমাদের সমাজ মূলত পিতৃতান্ত্রিক প্রাচীনকাল থেকেই সমাজের সর্বত্র ছড়ি ঘুরিয়ে আসছেন পুরুষরা। প্রাচীনকালের থেকে বর্তমানে নারীদের স্বাধীনতা অনেকখানি বেশি তবে এখনো পর্যন্ত সম্পূর্ণ নয়।নারী পুরুষ সমান অধিকারের গল্প সর্বত্র বলা হলেও বাস্তবে তার প্রতিফলন খুব কমই দেখা যায়।

আমাদের দেশে এখনো অনেকের মনে এই ধারণা রয়ে গেছে যে নারী শুধুমাত্র ঘর সংসার এবং সন্তান উৎপাদনের সাধন মাত্র। আর সংসার কিংবা সন্তান দুটো ধাপের আগে রয়েছে বিবাহ নামক একটি রীতি নীতি।

সমাজের সব ধর্ম সব জাতিতে বিবাহের নানা রকমের প্রথা চালু আছে। বর্তমানে লিভ ইন রিলেশনশিপ, সিঙ্গেল প্যারেন্ট হুড এসব পাশ্চাত্য সংস্কৃতির আগমন ঘটলেও আমাদের দেশ এখনো সেই সব ভাবনার প্রতি উদার নয়।

আমাদের দেশে মেয়েদের বিয়ে হওয়ার বৈধ আইনি বয়স 18। 18 পড়ে পড়ে অনেকের বিয়ে হয়ে যায়, 21 22 23 এইসব বয়সে মেয়েদের খুবই সম’স্যার সম্মুখীন হতে হয় বিয়ে করার প্রসঙ্গে।

সেসব বয়সে মেয়েরা বিভিন্ন সম’স্যার সম্মুখীন হয়। যেমন-

বাবা-মায়ের হতাশা। মেয়ের বয়স হয়ে যাওয়ার পরেও অনেক বাবা মা রোজই হতাশা প্রকাশ করেন মেয়ের বিয়ে দিতে স’ক্ষম না হওয়ার জন্য। কারণ আমাদের দেশে মেয়ের বিয়ে দেওয়া কন্যাদায়গ্রস্ত মা-বাবার ক্ষেত্রে খুব অসু’বিধের।

এর সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে সমাজের বিভিন্ন রকম মানুষজনের থেকে বিয়ের ব্যাপারে প্রশ্ন পরামর্শ পাওয়া। আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধব তাকে বারবার বিয়ের ব্যাপারে জিজ্ঞেস করতে করতে বির’ক্তির সৃষ্টি করে দেয়।

ওই বয়সে পৌঁছে যাওয়ার পর সমাজের অনেক পুরুষের বাজে ধারণা হয় ওই মেয়ের প্রতি। তারা নানাভাবে উপভোগ করার চেষ্টা করতে থাকে। বিভিন্ন কারণে মেয়েটির ব্যক্তিগত সুরক্ষা বি’ঘ্নিত হতে থাকে।