“দেখে ভয় পেয়ে গেলাম! দুর্গা নয়, যেন পেত্নী বসে আছে!”, মহালয়ায় নিজের দুর্গা সাজ দেখাতে গিয়ে কটাক্ষের শিকার নুসরত!

নিজস্ব প্রতিবেদন:- অভিনেত্রী নুসরাত জাহানের সাথে যেন বহুদিন ধরেই বিতর্কের একপ্রকার আলাদা যোগাযোগ রয়েছে। যাই হয়ে যাক না কেন বিতর্ক কিন্তু অভিনেত্রীর পেছন ছাড়তে চায় না। প্রেম দিয়ে থেকে শুরু করে সন্তান সবকিছু নিয়েই বিগত বছরগুলিতে সংবাদ শিরোনামে থেকে চান নুসরাত জাহান। যদিও সেই সব বিষয়কে খুব একটা পাত্তা দেন না নুসরাত। সমালোচনার মধ্যে থাকলেও তিনি সবসময় ট্রোলারদের কিন্তু বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে এসেছেন। নেট মাধ্যমে প্রায় সময় বিভিন্ন ছবি শেয়ার করে কটাক্ষের মুখোমুখি হয়েছেন নায়িকা। তবে তারপরেই যেন বিভিন্ন ছবি আপলোড করার মাত্রা কয়েকগুণ বেড়ে গিয়েছে অভিনেত্রীর।

সম্প্রতি মহালয়া উপলক্ষে বেশ কয়েকটি আগমনী ফটোশুটের ছবি শেয়ার করে নিয়েছিলেন নুসরাত। ছবিগুলিতে দেখা যাচ্ছে খাঁটি বাঙালি সাজে মোহময়ী নুসরত জাহান। আলতা রাঙা দু হাত আর পা। পরণে লাল পাড় সাদা শাড়ি, পিটখোলা ব্লাউজে যৌবনের ঢেউ খেলছে নায়িকার শরীরে।

ভিজে চুলে শরীরে নিচ্ছেন পিঠের ওপর থেকে। ব্যাকগ্রাউন্ডে বাজছে, “বাজলো তোমার আলোর বেণু”। প্রসঙ্গত এই ছবিগুলি তোলা হয়েছে বাওয়ালি রাজবাড়ীতে। এদিন একটি ভিডিও পোস্ট করে সকলকে আগমনীর শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তিনি। আর এই ছবিগুলি শেয়ার করা মাত্রই সৃষ্টি হয়েছে অভিনেত্রীকে কেন্দ্র করে বিতর্ক।

প্রসঙ্গত ব্যক্তিগত জীবনে অভিনেত্রী ইসলাম ধর্মাবলম্বী হওয়ার কারণে কিন্তু তাকে এর আগেও হিন্দু ধর্মের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার জন্য কটাক্ষের মুখোমুখি হতে হয়েছে। যদিও সব ধর্মকেই তিনি অত্যন্ত সম্মান করেন এবং প্রত্যেকটা অনুষ্ঠানেই সম্প্রীতির বার্তা দেন। যার ফলস্বরূপ এ দিনের পোস্টগুলি শেয়ার করতেই অনেকে নায়িকার ধর্ম তুলে আক্রমণ করেছেন তাকে, আবার অনেকেই কিন্তু তাকে বডি শেমিং করতে শুরু করেছেন। কেউ আবার লিখেছেন, “মহা ঠগবাজ মেয়ে নাকি মা দুর্গা!” নুসরত হিন্দু না মুসলমান, সেই প্রশ্নও করা হয়েছে। এমনকি অভিনেত্রীকে ‘দখোজ’ এর জন্য তৈরি থাকার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

আবার কেউ ‘শুভ মহালয়া’ লেখায় আপত্তি জানিয়ে অভিনেত্রীকে পরামর্শ দিয়েছেন, “শুভ মহালয়া বোলো না। ওটা ভুল। আমি গত বছর জেনেছিলাম মহালয়াতে পিতৃপুরুষের তর্পণ করা হয়। তাই মহালয়া শব্দটার আগে শুভ বলতে নেই। শ্রাদ্ধে যেমন বলে না কেউ।” এত সমালোচনামূলক মন্তব্যের মাঝেও যদিও কিছু মানুষ কিন্তু নুসরাতকে সমর্থন জানিয়েছেন এবং তার পোস্টে প্রশংসা সুযোগ অনেক মন্তব্য করেছেন। যেমন এক জনৈক নেটিজেন লিখেছেন,“খুব সুন্দর, মুসলিম হয়েও এতো সুন্দর করে বাঙালি ঐতিহ্যকে তুলে ধরার জন্য ভালো লাগছে তোমাকে নুসরত দি।”

উল্লেখ্য হিন্দু-মুসলিম সম্প্রীতি রক্ষা নিয়ে এর আগেও নানান কাজ করেছেন নুসরাত জাহান। কখনো তাকে লোকনাথ বাবার মন্দিরে প্রসাদ রান্না করতে দেখা গিয়েছে আবার কখনো বা রথের রশি টেনেছেন তিনি। এই প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে এক সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী নুসরাত জাহান জানিয়েছিলেন, “ঈশ্বর এক ও অদ্বিতীয়। আমি নুসরত জাহান। মুসলিম পরিবারের মেয়ে। আমি ধর্মের ভেদাভেদ মানি না। আমি যেমন কোরান পড়েছি। তেমন গীতা ও বাইবেলও পড়েছি। সেখানে কোথাও ধর্মের ভেদাভেদ ও হানাহানির কথা বলা হয়নি।”

Back to top button