একসময় বহু গুণী ব্যক্তিদের সাথে করেছেন গান! রয়েছে ঝুলিতে বহু পুরস্কারও, শেষ বয়সে কেমন আছেন বিখ্যাত গায়িকা হৈমন্তী শুক্লা?

নিজস্ব প্রতিবেদন:- হৈমন্তী শুক্লা বাংলার সংগীত জগতের একজন কিংবদন্তি গায়িকা। মান্না দে, হেমন্ত মুখোপাধ্যায়, সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায় প্রভৃতি শিল্পীদের অনেকটা পরেই তার আগমন। তবুও তিনি নিজের দক্ষতায় গানের জগতে একপ্রকার আলাদা জায়গা তৈরি করে নিয়েছিলেন। তবে বর্তমানে তিনি কেমন আছেন? কি করছেন তা কিন্তু অনেকেই জানেন না। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা পাঠকদের সাথে আলোচনা করে নেব সেই সমস্ত কথা প্রসঙ্গে। পাশাপাশি তার জীবনের অনেক অজানা কথা নিয়েও আমরা এখানে আলোচনা করব।

আপনিও যদি এই সমস্ত বিষয়ে জানতে আগ্রহী থাকেন তাহলে অবশ্যই আমাদের এই প্রতিবেদনটি একেবারে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ে ফেলুন। ২রা ফেব্রুয়ারি ১৯৪৯ সালে হৈমন্তী শুক্লা জন্মগ্রহণ করেন। ছোটবেলা থেকেই গানের প্রতি তার আলাদা আকর্ষণ ছিল বলা যায়। তার অন্য ভাই বোনেরাও গান খুব ভালবাসতেন তবে হৈমন্তীর ভালোবাসা ছিল একেবারেই অন্য মাত্রায়। সত্যি কথা বলতে গান ছাড়া অন্য কিছুই ভাবতে পারতেন না তিনি। বাবা হরিহর শুক্লার কাছে ক্লাসিক্যাল গানের তালিম নিয়েছিলেন হৈমন্তী।

তার বাবা ছিলেন একজন বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী। ওনার হাত ধরেই হৈমন্তীর গানের জগতে পথ চলা শুরু হয়। ছোট থেকেই হৈমন্তী স্বপ্ন দেখতেন একসময় তার রেকর্ড করা গান সকলেই শুনবে। সেই স্বপ্ন পূরণ করার লক্ষ্যে নিজের মন প্রাণ সমস্ত কিছুই গানে ঢেলে দিয়েছিলেন তিনি। ১৯৭০ সালে তার গলায় রেকর্ড করা হয় বাচ্চাদের ছড়ার গান। তারপরে পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা ও শৈলেন মুখোপাধ্যায়ের সুরে তার গলায় আরো একটা গান রেকর্ড করা হয়। এই গানটি হল ‘এতো কান্না নয় আমার’। সেই সময় দুর্গাপূজোয় গানটি প্রকাশিত হয়েছিল।

এরপর থেকেই নিয়মিত পুজোর সময় তার একটি করে গানের রেকর্ড বেরোতে শুরু করে। হৈমন্তী শুক্লার গান গাওয়ার উদ্যম সেই সময় অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। ১৯৮৬ সাল নাগাদ পন্ডিত রবিশঙ্করের সুরে বেশ কয়েকটি গান রেকর্ড করেন তিনি। তবে বাংলা ছায়াছবিতে তার গান প্রথমবার রেকর্ড করা হয় “আমি সে ও সখা” ছবিতে। গানগুলি সেই সময় বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল। এরপর অসাধারণ, সিস্টার, দর্পচূর্ণ, ভক্তের ভগবান, অন্তরতম, মুসলমানি ভিলা থেকে শুরু করে একাধিক চলচ্চিত্রে তার গান শুনতে পাওয়া গিয়েছে। বাংলা ছাড়াও বলিউডে ও গান গেয়েছেন হৈমন্তী শুক্লা। বর্তমানে ৭৩ বছর বয়সী হৈমন্তী শুক্লা এখনো কিন্তু আগের মতোই গান নিয়ে চর্চা করেন।

কোন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে নিজের নাম কিন্তু তিনি জড়াননি কখনোই। তার কথায়, “আমি একজন গায়িকা। ৫০ বছর ধরে গান গেয়ে এসেছি। এখনো তেমনভাবেই গান গেয়ে যাব। ওটাই আমার এক ও অদ্বিতীয় পরিচয়”। প্রসঙ্গত বয়স বাড়লেও তার গানের গলা আগের মতই সুরেলা। তার কণ্ঠের উপর বয়সের কোন ছাপ পড়ে নি বলাই যায়।

আশা করবো যেন তিনি ভাল থাকেন এবং সুস্থ থাকেন। সবশেষে বলবো হৈমন্তী শুক্লার মতন একজন শিল্পী পেয়ে আমরা সকলেই ধন্য। যদি আপনারা কখনো এই শিল্পীর গান না শুনে থাকেন তাহলে অবশ্যই কিন্তু এই প্রতিবেদনটি পড়ার পর একবার হৈমন্তী শুক্লার যে কোন গান শুনে নিতে ভুলবেন না।

Back to top button