মহিলাদের জন্য বাড়িতে বসে দারুণ ব্যবসার আইডিয়া, সারাবছর চলে এই ব্যবসা

নিজস্ব প্রতিবেদন : যারা কম খরচে কিছু ব্যবসা শুরু করতে চাইছেন তাদের জন্য আমাদের আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদন। লকডাউনের পর থেকেই কিন্তু সাধারণ মানুষের মধ্যে বেকারত্বের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে গিয়েছে। বিভিন্ন সংগঠন বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে প্রচুর পরিমাণে মানুষ কাজ হারিয়ে ফেলেছেন। করোনা পরবর্তী সময়ে আর নতুন কোন সংস্থা তৈরি না হওয়ায় নতুন কোন কাজের খোঁজ ও পাওয়া যাচ্ছে না।

তাই আজকাল ব্যবসা তৈরি করার দিকে ঝুকে গিয়েছেন বেশিরভাগ মানুষ।তবে তাতেও রয়েছে বেশ কয়েকটি সমস্যা। কি ধরনের ব্যবসা শুরু করলে অল্প সময়ে লাভবান হওয়া যাবে এবং কিভাবে? এই বিষয়গুলির উপর কিন্তু প্রথমেই আমাদের নজর দিতে হবে। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা মোমবাতি তৈরির ব্যবসা সম্পর্কে আপনাদের সাথে আলোচনা করে নিতে চলেছি।

  • কিভাবে শুরু করবেন এই ব্যবসা?

মোমবাতি তৈরি এমনই একটা ব্যবসা যেটা ক্ষুদ্র শিল্পের মতো ঘরে বসে করা যায় আবার বড় পরিসরে কারখানা স্থাপন করেও করা সম্ভব। একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে ভারতে মোমবাতির বাজার প্রায় ৮ শতাংশ হারে বাড়ছে। ইদানিং সেটিং এর পরিমাণ যেমন বৃদ্ধি পেয়েছে ঠিক তেমনভাবেই কিন্তু বিভিন্ন কাজে ব্যবহারও অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে।

সুতরাং এই ব্যবসার চাহিদার ক্ষেত্রে আপনাদের কখনোই অভাব হবে না একথা নিঃসন্দেহে আমরা বলতে পারি। কবে ব্যবসা শুরু করতে গেলে কিন্তু আপনাদের নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম মেনে অবশ্যই চলতে হবে। আজকাল ঘরের অন্দরসজ্জার কাজেও কিন্তু মোমবাতি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আপনারা এই ব্যবসা যেমন বাণিজ্যিকভাবে শুরু করতে পারেন ঠিক তেমন ভাবেই কিন্তু বাড়িতে অল্প জায়গার মধ্যেই শুরু করতে পারেন। গৃহবধূরা যারা ছোটখাটো কাজের সন্ধান করছেন তারাও এই ব্যবসায় অংশগ্রহণ করতে পারেন।

  • ব্যবসা শুরু করার জন্য মূলধন এবং কাঁচামাল:

মোমবাতি তৈরির ব্যবসা শুরু করার জন্য কিন্তু খুব বড় অংকের মূলধন প্রয়োজন নেই।। আপনারা বাড়িতে অল্প টাকার মধ্যেই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। তবে বাণিজ্যিক পরিসরে ব্যবসা শুরু করতে চাইলে কিন্তু আপনাদের মোটামুটি ৫০০০০ টাকা মতন খরচ করতে হবে। বাণিজ্যিকভাবে মোমবাতি তৈরির ব্যবসা শুরু করতে গেলে কিন্তু আপনাদের মেশিনের প্রয়োজন হবেই।

এই মেশিন কেনার নির্দিষ্ট জায়গা রয়েছে এবং নির্দিষ্ট দামও রয়েছে।ম্যানুয়াল মেশিনে প্রতি ঘণ্টায় ১৮০০ মোমবাতি তৈরি করা যায়। পরিচালনা করাও সহজ। অন্য দিকে, সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় মেশিনে প্রতি মিনিটে ২০০ মোমবাতি তৈরি হয়।মেশিন ছাড়াও মোম, সুতো, রঙ এবং ইথার লাগবে। এছাড়া সুগন্ধী মোমবাতি তৈরি করলে সেন্টেরও প্রয়োজন হবে। বাজার বা অনলাইন থেকেই এই সমস্ত জিনিস কিনতে পাওয়া যায়।

  • মোমবাতি তৈরির ব্যবসায়ে লাভের পরিমাণ:

এই ব্যবসা যদি আপনারা বড় পরিসরে শুরু করতে চান তাহলে কিন্তু আপনাদের ভালই ইনভেসমেন্ট করতে হবে।মনে রাখতে হবে, পণ্যের গুণমান এবং বিপণন কৌশলের উপরেই উপার্জন নির্ভর করবে। তবুও শুরুতে মাসে ২০০০০ টাকা আয় সম্ভব।

যদি কেউ সৃজনশীল হন এবং ডিজাইনার মোমবাতি তৈরি করতে পারেন তাহলে একধাক্কায় উপার্জন অনেকটা বেড়ে যাবে। সুতরাং মোমবাতির ব্যবসা শুরু করার আগে কিন্তু আপনারা এই বিষয়গুলির উপর অবশ্যই নজর দেবেন। গ্রাম থেকে শুরু করে শহর সব জায়গাতেই এই ব্যবসা করা সম্ভব।

  • মেশিন কেনার সুযোগ্য ঠিকানা:

মোমবাতি তৈরির মেশিন আপনারা কিন্তু অনেক জায়গা থেকেই কিনতে পারেন তবে আমরা যে জায়গার কথা বলব সেখান থেকে অত্যন্ত ভালো মূল্যে আপনারা এই মেশিন পেয়ে যাবেন গ্যারান্টি সহ। মোমবাতি তৈরির মেশিন কেনার জন্য আপনারা কলকাতার সোনারপুরে অবস্থিত super art কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে নিতে পারেন।

এখানে কিন্তু শুধুমাত্র মোমবাতি তৈরির নয় আরো অনেক ব্যবসা সংক্রান্ত মেশিন বিক্রয় করা হয়। বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য আপনারা 9002886369/8335815276 এই দুটি নম্বরে যোগাযোগ করে নিতে পারেন।

Back to top button