জল কামানের মধ্যে মেশানো ছিল করোনার জীবাণু! তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিস্ফো’রক বিজেপি নেতার!

জল কামানের মধ্যে মেশানো ছিল করোনার জীবাণু! তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিস্ফো’রক বিজেপি নেতার!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- গত বৃহস্পতিবার বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে কলকাতার রাজপথে প্রায় ৫০ হাজার বিজেপি কর্মী নবান্নের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় । লক্ষ্য একটাই যেনতেন প্রকারে নবান্ন অভিযান সফল করতে হবে । যদিও নবান্নে ধার কাছ অব্দি ঘেঁষতে পারেনি তারা ।তার আগে মোকাবেলা করতে হয়েছে রাজ্য প্রশাসনের পুলিশের সাথে। পুলিশ নবান্ন যাওয়ার সমস্ত রাস্তা বন্ধ করে রেখেছিল । ত্রিস্তরীয় ব্যারিকেড জলকামান কাঁদানে গ্যাস আগে থেকেই ব্যাবস্থা করে রেখেছিল পুলিশ । তার পাশাপাশি ছিল বিশাল সংখ্যক পুলিশ বাহিনী।

তার দুদিন আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্যানিটেশনের এর কারণে নবান্ন বন্ধ থাকার কথা ঘোষণা করেছেন । যদিও সেটিকে ভ-য় পেয়ে পালিয়ে যাওয়া বলে মনে করেন বিজেপি । ঐদিন ওই বিরাট জনমিছিলে ব্যবহার করা হয় জলকামান । এবং তাতে ছিলো রং। কিন্তু সেটি সাধারণ রং ছিল না বরং ছিল কেমিক্যাল মিশ্রিত রং ছিলো এমনটা মন্তব্য করেছিলো বিজেপি। যদিও সে মন্তব্যকে তোয়াক্কা না করে অস্বীকার করেছে নবান্ন।

করোনা পরিস্থিতি মাথায় রেখে কার্যত বড় জমায়েত থেকে বিরত থাকতে বলা হচ্ছে বারবার। কিন্তু শেষ হবে তোয়াক্কা না করে হয়েছিল নবান্ন মিছিল । মুখের মাস্ক ছিল না কারোরই । ফলে এক বড় সংখ্যার সং-ক্র-ম-ণ হওয়ার আ-শ-ঙ্কা ছিল বিশেষজ্ঞদের মতে। আর সেই আ-শ-ঙ্কা-য় এবার সত্যি হল । নবান্ন অভি-যান এর পর বেশ কয়েকজন বিজেপির প্রথম সারির নেতা করোনা আ-ক্রা-ন্তে-র খবর শোনা যায় । সেইমতো তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করলেও এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজ্যের প্রশাসনকে ক-টা-ক্ষ করতে ছাড়েনি গেরুয়া শিবির।

বিজেপির বক্তব্য সেদিনের জলকামানও শুধুমাত্র রাসায়নিক রং নয় তার পাশাপাশি জলকামান ব্যবহার করা হয়েছিল করোনা ভাইরাস । যার সংস্পর্শে এসে অনেক বিজেপি করোনাতে আ-ক্রা-ন্ত হয়। তবে তাদের এই আ-ক্রা-ন্তে-র কারণ আদতে জলকামান না সামাজিক দূরত্ব না মেনে জমায়েত করা তা নইয়ে আছে অনেক সংশয়। , প্রশ্ন । তবে এ ব্যাপারে রাজ্য তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে যাদের কোনো কাজ নেই তারাই একমাত্র বাংলা কে ছোট করার চেষ্টা করছে। পুলিশ নিজের কাজ করেছে।

,

Leave a Reply

Your email address will not be published.