বাড়িতে কোনো ঝামেলা ছাড়াই ঘরের পর্দা পরিষ্কার এখন খুব সহজ! দেখে নিন পর্দা পরিষ্কারের সহজ ও কার্যকরী এই টিপস!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- ছোট থেকে বড় প্রত্যেক বাড়িতেই কিন্তু দরজা-জানলাতে সৌন্দর্য বৃদ্ধি এবং আবরণের জন্য নানান ধরনের পর্দার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। নিয়মিত এই পর্দা কিন্তু আপনাদের পরিষ্কার করে নিতে হয়। যেহেতু এগুলি একেবারে খোলামেলা অবস্থায় থাকে তাই স্বাভাবিকভাবেই প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে ধুলোবালি এই পর্দার উপরে কিন্তু লেগে যায়।

অন্ততপক্ষে মাসে এক থেকে দুবার যদি আপনারা এগুলি পরিষ্কার না করেন তাহলে স্বাভাবিকভাবেই এগুলি কালচে বর্ণের হয়ে যাবে এবং ধীরে ধীরে বিবর্ণ হয়ে পড়বে। তবে পর্দা কি শুধু ধুলেই কাজ হয়ে যাবে? না এখানেও কিন্তু রয়েছে বিশেষ কিছু নিয়ম! যেরকম ধরনেরই পর্দা আপনার বাড়িতে লাগানো থাক না কেন অবশ্যই কিন্তু এই প্রতিবেদনটি দেখার পরেই পর্দা ধুতে যাবেন। নয়তো বড়সড়ো সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন আপনারা। তাহলে চলুন আর দেরি না করে আমাদের এই প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।

  • বাড়ির পর্দা পরিষ্কার করার আগে বিশেষ কিছু লক্ষণীয় বিষয়:

১) আমাদের প্রত্যেকের বাড়িতেই সাধারণত দুই ধরনের পর্দা থাকে। এক ধরনের পর্দা যাতে সাধারণত রিং ব্যবহার করা হয়। অন্য ধরনটিতে হুক লাগানো থাকে। যদি আপনাদের বাড়িতে রিং জাতীয় পর্দা থাকে সেক্ষেত্রে কিন্তু ধোয়ার আগে অবশ্যই রিং অংশটি কে আপনাদের আলাদা করে কোন জায়গায় খুলে রেখে দিতে হবে। কারণ ধোয়ার সময় যদি এটি কোনভাবে নষ্ট হয়ে যায় তাহলে কিন্তু আপনারা আর পর্দা লাগাতে পারবেন না। অপরদিকে যদি আপনাদের বাড়িতে হুক জাতীয় পর্দা থাকে সেক্ষেত্রে অবশ্যই প্রতিটি পর্দা খোলার সাথে সাথেই হুকগুলিকে একটি আলাদা কোন জায়গায় তুলে রেখে দিন।

২) অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য দুই ধরনের পর্দা একসাথে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তবে আপনারা কিন্তু অবশ্যই এগুলি ধোয়ার আগে ডার্ক কালার এর সাথে ডার্ক এবং লাইট কালারের সাথে লাইট কালারের পর্দাই ধোবেন। সেটা যদি না করেন তাহলে এমনটা হতে পারে যে একটা পর্দার রং অন্য পর্দার উপরে প্রভাব বিস্তার করে ফেলল। তখন কিন্তু অনেকটাই দৃষ্টিকটু ব্যাপার হয়ে যাবে।

  • সহজ উপায়ে পর্দা পরিস্কার:

উপরের দুটি বিষয় লক্ষ্য রেখে আপনাদের প্রথমেই পর্দা খুলে নিতে হবে। তারপর একটি বড় গামলার মধ্যে পর্যাপ্ত জল নিয়ে তাতে যে কোন ডিটারজেন্ট পাউডার অথবা শ্যাম্পু মিশিয়ে ফেলুন।

এবারে এই মিশ্রণটিকে হাত দিয়ে কিছুটা নাড়াচাড়া করে তার মধ্যে পর্দা গুলিকে দিয়ে ভিজিয়ে রেখে দিন।

অন্ততপক্ষে এইভাবে দুই থেকে তিন ঘন্টা রেখে দেওয়ার পরেই আপনারা হাত দিয়ে সামান্য কেচে অথবা ওয়াশিং মেশিন ব্যবহার করে সহজেই পর্দা পরিস্কার করে নিতে পারবেন।

অবশ্যই পর্দা শুকিয়ে নেওয়ার পরে ইস্ত্রি করতে ভুলবেন না। যদি পর্দার কাপড় সাধারণ সুতির মতন হয়ে থাকে তাহলে বাড়িতেই আয়রন করে নিতে পারেন। তবে কাপড় যদি একটু অন্য ধরনের হয়ে গিয়ে থাকে তাহলে কিন্তু দোকান থেকেই আয়রন করাটা বেশি ভালো হবে।

আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি আপনার কেমন লাগলো তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন। এই ধরনের আরো ছোটখাটো টিপস সম্পর্কে জানতে আমাদের অন্যান্য প্রতিবেদনগুলির উপর নজর রাখতে থাকুন।

Back to top button