বড় খবর-মহাষষ্ঠীতে সল্টলেকে দুর্গাপুজোর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, করলেন বড় ঘোষণা!

বড় খবর-মহাষষ্ঠীতে সল্টলেকে দুর্গাপুজোর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, করলেন বড় ঘোষণা!

নিজস্ব প্রতিবেদন:- আর হাতে গোনা কয়েকটা মাস তারপর এই ভোট। তার আগে দোড়গোড়ায় এসে পৌঁছেছে বাঙালির শ্রেষ্ঠ পুজো । কাজেই একে এবং বাঙালির আবেগকে কাজে লাগিয়ে রাজনীতির চাল চাল চাইছেন বিজেপি । বাংলার মানুষদের একত্রিত করে একটি বড় সংগঠন এবং শক্তিশালী সংগঠন করেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । কিন্তু সেই সংগঠনে বিপরীতে আরও শক্তিশালী সংগঠন তৈরি করতে চাইছে বিজেপি ।তাই তাদের লক্ষ্য এবারের বাঙালি আবেগ ।

স্বাভাবিকভাবে বাংলার মানুষদের মনে একটি বিশ্বাস জন্মেছে যে বিজেপি হচ্ছে বাঙালি বি-রো-ধী একটি দল । এবং তার প্রমাণ আমরা এর আগেও অনেকবার পেয়েছি ।কিন্তু সামনে বিধানসভা ভোটে ক্ষমতায় আসার জন্য প্রথমে বাঙালির মনে জায়গা করতে হবে ।তাই এই দুর্গাপুজো সময়কে অর্থাৎ বাঙালি আবেগকে কাজে লাগাতে চাইছে বিজেপি।

বেশ কিছুদিন আগে বিজেপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল ষষ্ঠীর দিন অর্থাৎ বোধনের দিন ভার্চুয়াল মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী এক বিশেষ বক্তব্য রাখবেন। তবে এর পাশাপাশি জানানো যাচ্ছে যে সল্টলেকের একটি পুজো উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভার্চুয়াল মাধ্যমে । জানা যাচ্ছে, সল্টলেকে ইজেডসিসি-র ভিতরে একটি দুর্গাপুজো হয়। মহাষষ্ঠীর দিন রাজ্যবাসীর উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার পাশাপাশি ইজেডসিসি-র সেই পুজোরও অনলাইনের মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

এদিন রাজ্য বিজেপির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু জানান, “ইজেডসিসি-র ওই পুজোর সঙ্গে যুক্ত সংস্কৃতি জগতের বহু ব্যক্তিত্ব। সল্টলেকের কিছু বিশিষ্ট মানুষজন এবং বিজেপির সদস্যরাও যুক্ত রয়েছেন ওই পুজোর সঙ্গে। সেই পুজোটির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।” এর পাশাপাশি সেখানে থাকবেন উপস্থিত বিজেপির বিশিষ্ট নেতা মন্ত্রীরা। নরেন্দ্র মোদির বার্তা শহরের প্রতিটি কোনায় কোনায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য থাকবে জায়ান্ট স্ক্রিন। তবে অপরদিকে কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে যে এবারের পূজোতে ৬০ বছরের উর্ধ্বে কোন বয়স্ক ব্যক্তি বা জটিল রোগা গ্রস্থ কোনো ব্যক্তি বা অন্তঃ-সত্ত্বা মহিলা যেন একটু বেশী সাবধানে চলেন। সে ব্যাপারে পুজো কমিটিকে বিশেষ নজর রাখা আর্জি জানিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার ।