শীত আসার আগেই এবার বাড়িতেই খুব সহজ এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে বানিয়ে নিন বডি লোশন, স্কিনের জন্য খুব উপকারী

নিজস্ব প্রতিবেদন: উৎসবের মরসুম শেষেই শুরু হয়ে যাবে শীতের আমেজ। তাই এখন থেকেই ত্বকের যত্ন নিতে শুরু করেছেন অনেকেই। শীতকালে কিন্তু ত্বক ফেটে যাওয়া থেকে শুরু করে নানান ধরনের সমস্যায় ভুগে থাকেন বেশিরভাগ মানুষ। এই সময়ে আমাদের স্কিনের বিভিন্ন সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে অনেকটাই সাহায্য করে নানান ধরনের বডি লোশন। বর্তমান সময় কিন্তু মার্কেটে নানান ধরনের বডি লোশন কিনতে পাওয়া যায় বিভিন্ন দামের মধ্যে।

আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না এই সমস্ত বডি লোশন গুলোতে কিন্তু নানান ধরনের রাসায়নিক পদার্থ মেশানো থাকে যা আমাদের ত্বকের ভালোর থেকে বেশি ক্ষতি করে। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে তাই আমরা আপনাদের সাথে শেয়ার করে নেব বাড়িতেই খুব সহজ কয়েকটি উপকরণ দিয়ে বডি লোশন তৈরি করার পদ্ধতি। আপনারা যারা নিয়মিত শীতের সময় বডি লোশন ব্যবহার করে থাকেন তারা কিন্তু অবশ্যই আমাদের আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি একেবারেই মিস করবেন না। এই বডি লোশন শুধুমাত্র আপনাদের স্কিনকে ময়েশ্চারাইজ রাখতেই নয়, স্কিনের উজ্জ্বলতা বাড়াতে এবং একে সুস্থ রাখতেও যথেষ্ট সাহায্য করবে।

বাড়িতে বডি লোশন তৈরি করার আগে সবার প্রথমেই যে ব্যাপারটি আপনাদের খেয়াল রাখতে হবে সেটা হল যে পাত্র বা চামুচগুলির সাহায্যে আপনারা এটি তৈরি করবেন সেটি কিন্তু ভালোভাবে ধুয়ে মুছে নেবেন। এই কাজে কোন রকমের ঝাল বা মসলার বাটি ব্যবহার না করাই আপনাদের পক্ষে ভালো। এরপর আপনাদের একটি বাটির মধ্যে যে কোন ভালো ব্র্যান্ডের এলোভেরা জেল নিয়ে নিতে হবে। মোটামুটি নির্দিষ্ট পরিমাপ অনুযায়ী আপনারা চার চামচ এলোভেরা জেল নিতে পারেন।

এরপর এই অ্যালোভেরা জেলের মধ্যে আপনাদের মিশিয়ে নিতে হবে কিছুটা পরিমাণে গ্লিসারিন। শীতের সময় গ্লিসারিন কিন্তু ত্বককে শুষ্কতার হাত থেকে রক্ষা করতে অত্যন্ত বেশি রকমের সাহায্য করে থাকে। শীতে যেহেতু আমাদের স্কিন খুব বেশি রকমের ড্রাই হয়ে যায় বা ফেটে যায় তাই এই গ্লিসারিন ব্যবহার করা অত্যাবশ্যক। মোটামুটি চার চামচ অ্যালোভেরা জেল দিয়ে আপনারা যদি বডি লোশন তৈরি করা শুরু করেন তাহলে আপনাদের গ্লিসারিন নিয়ে নিতে হবে ২ চামচ।

এবার এই দুটি উপকরণ এর মধ্যে আপনাদের মিশিয়ে দিতে হবে ৪টি ভিটামিন ই ক্যাপসুল। এই ক্যাপসুল আমাদের ত্বক আর চুলের জন্য দারুন উপকারী। এবার আপনাদের এর মধ্যে মিশিয়ে দিতে হবে আমন্ড অয়েল এক চা চামচ। যদি আমন্ড অয়েল না থাকে সেক্ষেত্রে আপনারা কিন্তু নারকেল তেলও ব্যবহার করতে পারেন। এই দুটি তেল কিন্তু আমাদের ত্বককে উজ্জ্বল রাখতে এবং মসৃণ করে তুলতে সাহায্য করে থাকে।

সবশেষে এই মিশ্রণের মধ্যে এক চামচ পরিমাণ অলিভ অয়েল যোগ করে দিয়ে ভালো করে এটাকে চামুচের সাহায্যে নাড়াচাড়া করতে থাকুন। দেখবেন কিছুক্ষণের মধ্যেই এই মিশ্রণটি ধীরে ধীরে ঘন হয়ে সাদা রংয়ের লোশনে পরিণত হয়ে যাচ্ছে। মোটামুটি পাঁচ থেকে সাত মিনিট এটাকে ভালোভাবে নাড়াচাড়া করে মিশিয়ে নিলেই কিন্তু এটা ধীরে ধীরে লোশনে পরিণত হয়ে যাবে। এরপর খুব সহজেই কিন্তু আপনারা এই লোশন যেকোনো কৌটো বা পরিষ্কার জায়গায় সংরক্ষণ করে রেখে দিতে পারেন।

মোটামুটি বেশ কয়েক মাস পর্যন্ত এই লোশন আপনারা সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন এবং ব্যবহার করতে পারবেন। চেষ্টা করবেন শীতকালে স্নানের পরে বডি লোশন ব্যবহার করার কারণ সেই সময় আমাদের শরীরে সবথেকে বেশি প্রয়োজন হয় মশ্চারাইজারের। অনেক ক্ষেত্রেই সাবান বা সাবান জাতীয় কোন কিছু আমাদের ত্বকে ব্যবহার করলে শীতকালে কিন্তু ত্বক ফেটে ফেটে যায়। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনের বডি লোশন তৈরি করার যে পদ্ধতি আমরা শেয়ার করলাম তা আপনাদের কেমন লাগলো এবং কতটা কাজে লাগল তা কিন্তু অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানাতে ভুলবেন না।

Back to top button