মেলেনি একটা বেড, টানা ৭দিন SSKM এমার্জেন্সির সামনে পড়ে থেকে টিউমার ফে’টে গিয়ে মৃ’ত্যু শিশুর!

মেলেনি একটা বেড, টানা ৭দিন SSKM এমার্জেন্সির সামনে পড়ে থেকে টিউমার ফে’টে গিয়ে মৃ’ত্যু শিশুর!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- প্রতিদিন কত যে মানুষ আমাদের আশপাশ থেকে চলে যাচ্ছে তার খবর হয়তো আমরা কেউ রাখি না । তার পরেই মা-র-ণ-ব্যা-ধি করোনা যা নিমিষের মধ্যে গ্রাস করে নিচ্ছে আমাদের প্রিয়জনদের জীবনকে ।শূন্য করে দিচ্ছে পরিবারকে ।এর পাশাপাশি ও একটু চোখ মেললেই দেখতে পাবো শুধুমাত্র হাসপাতালে বেড না থাকার জন্য মারা যাচ্ছে শত শত লাখ লাখ মানুষ। তারপরে সেই হাসপাতাল যদি সরকারি হাসপাতাল হয় তাহলে তো আর কোন কথাই থাকে না। এমনিতেই সরকারি হাসপাতালের বেহাল অবস্থার চিত্র আমাদের প্রত্যেকের কাছে স্পষ্ট । ঠিক সেরকমই একটা ঘটনা ঘটলো কলকাতা এসএসকেএম হাসপাতালে।

কলকাতা এসএসকেএম হাসপাতাল এখনো পর্যন্ত সবথেকে বড় সরকারি হাসপাতাল । কিন্তু সেই হাসপাতালের বিরুদ্ধে উঠে এলো চা-ঞ্চ-ল্য-ক-র অভি-যোগ ।এবং এই অভিযোগ করেন সদ্য সন্তানহারা এক বাবা-মা। যন্ত্র-ণায় কাতর হয়ে গেছেন সেই বাবা-মা। চোখের সামনে দেখেছে তার ছেলের মৃ-ত্যু। বছর খানেক আগে তার ছেলের পিঠে একটি টিউমার হয় । এবং সেটি চিকিৎসার জন্যই তারা কলকাতাতে পাড়ি দেয়। তারপর বিভিন্ন হাসপাতাল ঘোরার পর অবশেষে থাই হয় এসএসকেএম হাসপাতালে ।

কিন্তু সাত দিন ধরে এমার্জেন্সি সামনে বসে থাকার পরও মেলেনি বেড । বেড না থাকার দরুন ওই শিশুটিকে ভর্তি করা হয়নি । এমনটা দাবি তার পরিবারের । এবং ধীরে ধীরে যন্ত্র-ণাতে ছটফট করতে করতে মা-রা যায় সেই শিশুটি তাদের চোখের সামনে । রীতিমতো পাথর হয়ে গিয়েছ শোকে তার বাবা-মা ।

তবে এই অভি-যোগ সম্পূর্ণ ভাবে অস্বীকার করেছে এসএসকেএম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তারা জানিয়েছেন যে বেড না থাকার কারণে শিশুটিকে ভর্তি নেওয়া হয়নি ঠিক কথাই কিন্তু সাত দিন ধরে এমার্জেন্সি সামনে বসেছিল এমনটা নয় । এর আগে তারা কোথায় ছিল তা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানে না । সম্প্রতি এই ধরনের ঘটনা ফের মাথা-চাড়া দিয়ে ওঠাতে প্রশ্নের মুখে আরও একবার সরকার ।